• শনিবার   ২১ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
বৈশ্বিক সংকট মোকাবেলায় চার দফা প্রস্তাব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনায় এক মাস মৃত্যুহীন বাংলাদেশ বিশ্ব মেডিটেশন দিবস আজ ৪৪তম বিসিএস পরীক্ষা নিয়ে যা জানা গেল রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রসহ বৃষ্টির আভাস

১৪ বছরেও নির্মাণ হয়নি বেরোবির প্রধানফটক

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৯ জানুয়ারি ২০২২  

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি) প্রতিষ্ঠার ১৪ বছর পেরিয়ে গেলও কর্তৃপক্ষের উদাসিনতা ও অবহেলায় নির্মাণ হয়নি প্রধানফটক। শিক্ষার্থীদের দাবিতে প্রধানফটকের নকশা চূড়ান্ত করে রাখা হলেও তা বাস্তবায়নে নেই কোনো অগ্রগতি, হয়নি কোনো বাজেট ও নির্মাণ পরিকল্পনা।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়টি ২০০৮ সালের ১২ অক্টোবর রংপুর শহরে প্রতিষ্ঠা হয়। প্রতিষ্ঠার ১৪ বছরে একে একে চারজন উপাচার্যের মেয়াদ পূর্ণ করে পঞ্চম ‍উপাচার্য আসলেও ফটক নির্মাণের কোনো অগ্রগতি নেই। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের ফলে ২০২০ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর প্রধানফটকের নকশা চূড়ান্ত করে তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। নকশা চূড়ান্তের দেড় বছরেও বাস্তবায়নের কোনো অগ্রগতি নেই। এমনটি এর বাজেট ও নির্মাণ পরিকল্পনাও করা হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, এ বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট চারটি প্রবেশ পথ রয়েছে, যার একটিতেও ফটক নির্মাণ করা হয়নি। এমনকি স্পষ্ট করে চিহ্নিত করাও হয়নি। ফটকের স্থানে দেয়ালের ‍ওপর লোহাগুলো বের হয়ে থাকে, শুধু ভর্তি পরীক্ষা আসলে ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আগে লোহাগুলো পেপার মুড়িয়ে সাজানো হয়, কিছুদিন পরে তা নষ্ট হয়ে আবারো আগের মতো হয়।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী উম্মে কুলসুম বলেন, ফটকের মাধ্যমে প্রথম দর্শনে কোনো প্রতিষ্ঠানকে চেনা যায়। কিন্তু ফটকেই যদি না থাকে তাহলে সে প্রতিষ্ঠানের অসম্পূর্ণতা প্রকাশ পায়।

গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী সাইদুর রহমান বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়টি অনেক সুন্দর। কিন্তু প্রধানফটক না থাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের 
সৌন্দর্য প্রকাশিত হচ্ছে না। বাইর থেকে দেখে মানুষের মনে একটি বিরূপ ধারণা তৈরি হচ্ছে।

ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের শিক্ষার্থী সাইফুল ইসলাম বলেন, প্রতিষ্ঠার ১৪ বছরেও বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটক না হওয়া দুঃখের বিষয়। ফটক প্রতিষ্ঠানের পরিচয় বহন করে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটকের নকশা তো চূড়ান্ত করাই আছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ‍উদ্যোগ নিলেই তা দ্রুত বাস্তবায়ন করা সম্ভব।

এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-সহকারী প্রকৌশলী কমলেশ চন্দ্র সরকার জানান, আগের উপাচার্যের সময় ফটকের একটি নকশা চূড়ান্ত করা হয়েছিল। কিন্তু পরে ফটক নির্মাণের জন্য আর কোনো কাজ হয়নি।

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –