• শনিবার   ২১ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

সর্বশেষ:
বৈশ্বিক সংকট মোকাবেলায় চার দফা প্রস্তাব দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনায় এক মাস মৃত্যুহীন বাংলাদেশ বিশ্ব মেডিটেশন দিবস আজ ৪৪তম বিসিএস পরীক্ষা নিয়ে যা জানা গেল রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বজ্রসহ বৃষ্টির আভাস

আগামী নির্বাচনে আসছে নতুন দল ডিজিটাল বিএনপি! 

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০২২  

আগামী নির্বাচনে জয়ের লক্ষ্যে বিএনপিকে শক্তিশালী করে গড়ে তুলতে লন্ডনে পলাতক দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান গ্রহণ করেছেন নানা পরিকল্পনা। এমনকি তিনি পুরনো নেতাদের বাদ দিয়ে তরুণদের নিয়ে নতুন করে দল সাজাতে চান বলেও জানা গেছে।

এ অবস্থায় দলের মধ্যে সবচেয়ে নাজুক অবস্থায় থাকা বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, দল থেকে সদ্য বহিষ্কার হওয়া তৈমুর আলম খন্দকার, পদত্যাগ করা নেতা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোরশেদ খান এবং দলের স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য মাহবুবুর রহমান একসঙ্গে একীভূত হয়েছেন। বিএনপির ‘বি টিম’ হিসেবে ‘ডিজিটাল বিএনপি’ নামে নতুন দল গঠনে তারাই নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছেন। এ খবর চাউড় হওয়ার পর তারেক রহমান ভীষণ অস্বস্তিতে পড়েছেন বলে জানা গেছে।

একটি সূত্র বলছে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে ডিজিটাল বিএনপিতে মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বরের মতো নেতাও যোগ দিতে পারেন। তবে এ দল গঠন হওয়ার আগেই সভাপতি কে হবেন, তা নিয়ে সৃষ্টি হয়েছে বিভেদ ও বিশৃঙ্খলা। মূলত মির্জা ফখরুল ও মোরশেদ খান- দুজনই চাচ্ছেন দলের প্রধান হতে। তবে তাদের দুজনের গ্রহণযোগ্যতা এবং ব্যর্থতার প্রসঙ্গে এ সমস্যার সমাধান করা মুশকিল হবে বলেও গুঞ্জন চাউড় হয়েছে।

ডিজিটাল বিএনপির গঠন প্রক্রিয়া এবং সভাপতি নির্বাচন নিয়ে চলমান অসন্তোষের বিষয়ে জানতে চাইলে পরিচয় গোপন রাখার শর্তে এ প্রক্রিয়ায় আগ্রহী বিএনপির এক নেতা বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম কিন্তু এখনো বিএনপি থেকে বের হয়ে যাননি। গত কয়েক মাস থেকেই তারেক রহমানের লাঞ্ছনা সহ্য করে তিনি বিএনপির রাজনীতিতে টিকে আছেন। তারেক রহমানের অবজ্ঞা ও অবহেলার বিষয়টি দলের সবাই জানতে পেরে মির্জা ফখরুলকে সামনে সম্মান করলেও পেছনে বিরোধিতা করেন। এছাড়া দলের একাধিক সিনিয়র নেতা মহাসচিবের পদ বাগিয়ে নিয়ে জোর লবিং-গ্রুপিং শুরু করেছেন। আর মির্জা ফখরুল এসব বুঝতে পেরে বিএনপি ছেড়ে দিয়ে ডিজিটাল বিএনপিতে যোগ দিতে পারেন।

বিএনপির ঐ নেতা আরো বলেন, মূল বিএনপি ছেড়ে ডিজিটাল বিএনপিতে গিয়েও যদি মির্জা ফখরুল উপযুক্ত সম্মান ও মর্যাদা না পান, তাহলে তো তার পক্ষে বিষয়টি মেনে নেয়া কষ্টকর। আর এ কারণেই ডিজিটাল বিএনপির সভাপতি হতে চান মির্জা ফখরুল। 

দল গঠন হওয়ার আগেই সভাপতি নির্বাচন নিয়ে বিভেদ ও কোন্দলের বিষয়টিকে হাস্যকর দাবি করে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেন, বিএনপি থেকে বেরিয়ে সিনিয়র নেতারা নতুন নামে একটি দল গঠন করতে চাইছেন বলে একটি গুঞ্জন চলছে। তবে দলের পদ নিয়ে এমন মারামারি করার কোনো প্রয়োজন আমি দেখছি না। নেতাদের মনে রাখতে হবে, এই পদ-বাণিজ্যের কারণেই বিএনপি থেকে তারা বেরিয়ে গেছেন। 

অতএব ডিজিটাল বিএনপিতেও যদি পদ নিয়ে কোন্দল সৃষ্টি হয়, আর জনগণ সেটি জানতে পারে তবে মির্জা ফখরুলদের এ প্রয়াসও ব্যর্থ হবে।

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –