• শুক্রবার   ১৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৪ ১৪২৯

  • || ২০ মুহররম ১৪৪৪

সর্বশেষ:
এদেশের মাটিতে সবার সমান অধিকার: প্রধানমন্ত্রী নীলফামারীতে অপহৃত কিশোর উদ্ধার, আটক ৩ দিনের তাপমাত্রা কমবে ১ থেকে ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস অর্থনীতির চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার সক্ষমতা আছে বাংলাদেশের মেট্রোরেলের স্টেশনের কাজ প্রায় শেষ

২০২২ সালে পদ্মা সেতু খুলে দেবে দক্ষিণের দ্বার

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩১ ডিসেম্বর ২০২১  

সব সন্দেহের কুয়াশা ভেদ করে দাঁড়িয়ে গেছে পদ্মা সেতু। নিজস্ব খরচে সেতুর নির্মাণকাজ তরতর করে এগিয়ে চলেছে। ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে ধরে আগামী জুনে এ সেতু দিয়ে ঢাকার সঙ্গে দক্ষিণের ২১ জেলায় চলাচল করা যাবে। স্বপ্ন এখন স্বপ্ন নয়। এ বাস্তবতার আশা নিয়ে শুরু হচ্ছে ২০২২ সাল। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পদ্মা নদীর ওপর এ সেতু তৈরি করতে বহু প্রতিকূলতা পার হতে হয়েছে।

গত বছরের ১০ ডিসেম্বর সেতুর সবগুলো স্প্যান বসানোর কাজ শেষ হয়েছিল। এখন দোতলা সেতুর সড়কপথে পিচ ঢালাইয়ের কাজ চলছে বলে প্রকল্প সূত্রে জানা গেছে।

২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে বসানো হয়েছিল পদ্মা সেতুর প্রথম স্প্যান। ২০২০ সালের ১০ ডিসেম্বর খুঁটিতে সর্বশেষ ৪১তম স্প্যান বসানোর কাজ শেষ হয়েছিল। ফলে সেতুর ছয় হাজার ১৫০ মিটারের পুরো অংশই দৃশ্যমান হয়। সেতুতে দুই হাজার ৯১৭টি রোডওয়ে স্লাব ও দুই হাজার ৯৫৯টি রেলওয়ে স্লাব বসানোর কাজও শেষ করা হয়েছে। মাওয়া ও জাজিরা সংযোগ সড়কের কাজ শেষ করা হয়েছে আরও আগে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইচ্ছা ও দৃঢ় আত্মবিশ্বাসের ফলে সেতুটি হচ্ছে নিজস্ব খরচে। প্রধানমন্ত্রী তাই বার বার এ সেতুর অগ্রগতি দেখে উচ্ছ্বসিত হন। তারই ধারাবাহিকতায় ২০২১ সালের শেষদিনের সকালে বোন শেখ রেহানাকে নিয়ে সড়কপথে এ সেতু দেখতে গেলেন। তিনি সেতুর পদ্মা সেতুর ৭ নম্বর পিলার থেকে ১৮ নম্বর পিলার পর্যন্ত হেঁটে যান। সকাল সাড়ে ৭টায় পদ্মা সেতু এলাকায় পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। তিনি ও তার বোন সকাল সাড়ে ৭টা থেকে ৯টা ৫৭ মিনিট সেতু এলাকায় অবস্থান করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর পদ্মা সেতুর মূল অবকাঠামো নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেছিলেন। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ পদ্মা সেতুর। ২০০১ সালের ৪ জুলাই পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে এ সেতু তৈরির জন্য জোর তৎপরতা শুরু হয়। ২০১২ সালে বিশ্বব্যাংক এ সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ তোলে। তারা ঋণচুক্তি বাতিল করে। পরে এ অভিযোগ অসত্য প্রমাণিত হয়। ২০১৩ সালের ৪ মে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের মার্চে শুরু করা হয় সেতুর পাইলিংয়ের কাজ।

পদ্মা সেতুর প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী (সেতু) দেওয়ান মো. আবদুল কাদের ঢাকা পোস্টকে বলেন, সেতুর কাজ করোনাকালেও থেমে ছিল না, এগিয়েছে। আজ প্রধানমন্ত্রী সেতুতে হেঁটে দেখেছেন।

জানা গেছে, গত ২৪ জানুয়ারি গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়া থেকে ঢাকায় ফেরার পথে বার বার তাকিয়ে সেতু দেখছিলেন প্রধানমন্ত্রী। হেলিকপ্টার থেকে বঙ্গবন্ধু কন্যার সেতু দর্শনের ভিডিও ধারণ করা হয়েছিল মোবাইল ক্যামেরায়।

এদিকে ২০২২ সালের জুনে পদ্মা সেতু উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। গত রোববার (২৬ ডিসেম্বর) সচিবালয় থেকে ‘ঢাকা নগর পরিবহন’ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পদ্মা সেতুর কাজ এগিয়ে চলছে। এখন পিচ ঢালাইয়ের কাজ চলছে, এটা শেষ হলেই শেষ। আমাদের টার্গেটের মধ্যেই ২০২২ সালের জুনে পদ্মা সেতু উদ্বোধন হবে, সেটি তো আগেও বলেছি।

সেতুর কাজ এগিয়েছে ৯৫ শতাংশ

পদ্মা সেতু প্রকল্পের অগ্রগতি প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, নির্ধারিত সময়ে অর্থাৎ ২০২২ সালের জুনের মধ্যে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার জন্য যথাযথভাবে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। অক্টোবর ২০২১ পর্যন্ত শতভাগ (২৯১৭টি) রোডওয়ে এবং ২৯৫৯টি রেলওয়ে স্লাব স্থাপন করা হয়েছে। মূল সেতুর ক্রমপুঞ্জিত ভৌত অগ্রগতি ৯৫ শতাংশ। নদীশাসন কাজের ক্রমপুঞ্জিত ভৌত অগ্রগতি ৮৬ শতাংশ। পুনর্বাসন খাতে অক্টোবর ২০২১ পর্যন্ত ৭৪০.৩৯ কোটি টাকা অতিরিক্ত সহায়তা বাবদ ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

পুনর্বাসন সাইটগুলোয় এ পর্যন্ত ‘প্রকল্প পর্যায় প্লট বরাদ্দ কমিটি’ ৩০৩৫টি প্লট ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে বরাদ্দ দিয়েছে। এছাড়া ১০৫৮ জন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিকে ভিটা উন্নয়ন সহায়তা দিয়েছে। পুনর্বাসন কার্যক্রমের ক্রমপুঞ্জিত ভৌত অগ্রগতি ৯৩.৭০ শতাংশ। পদ্মা সেতুর উভয় প্রান্ত জাজিরা ও মাওয়ায় পুনর্বাসন ও সার্ভিস এরিয়া এলাকাগুলোয় বনায়নের জন্য গত সেপ্টেম্বর সর্বমোট ১ লাখ ৭৩ হাজার ২৯৪টি গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। পদ্মা সেতু প্রকল্প এলাকায় একটি জাদুঘর স্থাপনের কাজ চলছে। গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সর্বমোট ২৩৪৭টি নমুনা সংগ্রহ করে সংরক্ষণ করা হয়েছে এ জাদুঘরে।

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –