• বৃহস্পতিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৮ ১৪২৭

  • || ১৭ রবিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
‘সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের শান্তি বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর’ কুড়িগ্রামে ট্রলিচাপায় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নিহত চীনা বা ভারতীয় ঋণের ফাঁদের গল্প তথ্যভিত্তিক নয়- পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভঙ্গুর সাংগঠনিক অবস্থার কারণে নিশ্চিহ্নের পথে বিএনপি ছদ্মবেশে সরকারি অফিস থেকে দালাল ধরলেন ম্যাজিস্ট্রেট

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানোর বিকল্প চিন্তা করছে সরকার 

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৩ অক্টোবর ২০২০  

করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে চলতি বছরের ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। সর্বশেষ ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আছে। এ অবস্থায় শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের প্রশ্ন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি কি আরও বাড়বে, নাকি নভেম্বরে খুলে দেওয়া হবে? তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ানোর বিকল্প চিন্তাও করছে সরকার।

চলমান করোনা মহামারি স্বাভাবিক না হওয়ায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়ানোর ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের অনলাইন, টেলিভিশিন, রেডিও পাঠদান কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। শিক্ষা এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার (২২ অক্টোবর) এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়তে পারে, তবে কতদিন বাড়বে তা এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।  এ বিষয়ে খুব স্বল্প সময়ের মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানিয়ে দেয়া হতে পারে। 
 
ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আকরাম আল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার মতো পরিবেশ এখনো তৈরি হয়নি। তাই নতুন করে আরও ছুটি বাড়াতে হবে। আগামী ২৯ অক্টোবর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

এর আগে, নভেম্বরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা যাবে কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের কী মনে হয়? এখন পর্যন্ত যে অবস্থা তাতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেখানে খুলেছিল অধিকাংশ জায়গায় বন্ধ করার পর্যায়ে আছে। যেহেতু সব জায়গায় শীতকাল নিয়ে একটা দুশ্চিন্তা আছে, বিশেষজ্ঞ মহলও বলছে। সে কারণে আমাদের কোভিড-১৯ বিষয়ক যে জাতীয় পরামর্শক কমিটি রয়েছে আমরা তাদের সাথেও আলাপ-আলোচনা করব।”

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যখন মনে করব যে আমাদের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য ঝুঁকি নেই বা খুবই সামান্য, হয়তো বা যে রিস্কটুকু নেওয়া সম্ভব, সে রকম একটা অবস্থায় যদি যায়, তখন আমরা খুলতে পারব। সেটি কবে হবে সেটি আমাদের কারো পক্ষেই এই মুহূর্তে বলা সম্ভব নয়।”

শিক্ষার্থী ও অবিভাবকগণ বলেন, সরকার শিক্ষার্থীদের চূড়ান্ত নিরাপত্তার কথা চিন্তা করেই কাজ করছে। এ পর্যন্ত যত সিদ্ধান্ত নিয়েছ সরকার সবগুলোই সঠিক এবং সময়োপযোগী। এবারো সরকার যে সিদ্ধান্ত নিতে চায় আমরা সেই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই।

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –