ব্রেকিং:
দিনাজপুরে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জন ব্যক্তি করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩৩৬১ জনে। শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন দিনাজপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আব্দুল কুদ্দুছ।
  • শনিবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১১ ১৪২৭

  • || ০৮ সফর ১৪৪২

সর্বশেষ:
লালমনিরহাটে বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম শুরু বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে এসেছে জাতিসংঘের সদস্যপদ- প্রধানমন্ত্রী বিদেশে বিনিয়োগের সুযোগ পাচ্ছেন রপ্তানিকারকরা দিনাজপুরে আরো ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত রংপুরে মৃদুলের বাড়িটি এখন ‘মাছের বাড়ি’
১২৪

থিকনেস কম থাকায় রাস্তার কাজ সাময়িক বন্ধ করে দিলেন ইউএনও   

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩ সেপ্টেম্বর ২০২০  

লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার রাজবাড়ী এলাকা থেকে দলগ্রাম খোকা চেয়ারম্যানের বাড়ী পর্যন্ত একটি রাস্তার সংস্কার কাজে থিকনেস ও নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগে সংস্কার কাজ আপাতত সাময়িকভাবে বন্ধ করে দিয়েছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)।

রাস্তার সংস্কার কাজ আপাতত সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার বিষয়ে কালীগঞ্জ ইউএনও রবিউল হাসান মোবাইলে এই প্রতিনিধিকে নিশ্চিত করেন। 

কালীগঞ্জ উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্র জানায়, প্রায় ৫৩ লক্ষ টাকা ব্যয়ে উপজেলার তুষভান্ডার রাজবাড়ী থেকে দলগ্রাম খোকা চেয়ারম্যানের বাড়ী পর্যন্ত দুই হাজার ৬শ’ মিটার রাস্তা ১৬ ফুট চওড়া ও সংস্কার কাজের দরপত্র আহবান করে কালীগঞ্জ এলজিইডি। এ কাজটি পান ‘বিনিময় ডের্ডাস’ নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান রাস্তা সংস্কারের কাজে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহারসহ ও থিকনেস কম দিয়ে অনিয়ম করে আসছিল বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। 

 গতকাল বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে নিম্নমানের ইট ও খোয়া ডাব্লু বিএম ৬ ইঞ্চির জায়গায় ৪ ইঞ্চি দিয়ে প্রাইম কোড করার সময় স্থানীয়রা বাঁধা দেন। তাতে কাজ না হলে লোকজন উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে (ইউএনও) বিষয়টি অবগত করে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিআইওকে ফেরদৌস আহমেদকে সঙ্গে নিয়ে পরিদর্শনে যান। এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজনের দাবীর প্রেক্ষিতে এবং সত্যতা পাওয়ায় সাময়িকভাবে কাজ বন্ধ করে দেন।  
 
ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দেখভালের দায়িত্বে থাকা বদিউজ্জমান প্লাবন বলেন, আপাতত কাজ বন্ধ রাখার বিষয়ে শ্রমিকদের নিকট থেকে শুনেছি। 

তিনি দাবী করে বলেন, যেভাবে কাজটি হচ্ছে, তাতে থিকনেস কম বা নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করার প্রশ্নই আসে না। স্থানীয় লোকজন ইউএনওকে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত করছেন। উপজেলা প্রকৌশলী বাইরে থাকায় আপাতত কাজ বন্ধ রাখা হয়েছে। তিনি এসে সরজমিন দেখে কাজের অনুমতি দিলেই আবার কাজ শুরু হবে।

উপজেলা প্রকৌশলী আবু তৈয়ব মোঃ শামসুজ্জামান বলেন, অফিসিয়াল কাজে কর্মস্থলের বাইরে ছিলাম। স্থানীয়দের মাধ্যমে রাস্তার সংস্কার কাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার ও থিকনেস কমের অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি ইউএনও মহোদয়কে জানিয়েছি। তিনি সরজমিনে পরিদর্শন করে আপাতত কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে। বৃহস্পতিবার(৩ সেপ্টেম্বর) আমি গিয়ে সরজমিন দেখে আবার সংস্কার কাজ শুরু করা হবে। যাতে কোনো ভুল বুঝাবুঝি না হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রবিউল হাসান বলেন, স্থানীয়দের অভিযোগে বুধবার বিকালে সরজমিনে পরিদর্শন শেষে আপাতত সাময়িকভাবে রাস্তাাটির সংস্কার কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার উপজেলা প্রকৌশলীকে সরজমিনে খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।  

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –
লালমনিরহাট বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর