ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরো দুই হাজার ৩৮১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ৪৯ হাজার ৫৩৪ জনে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে মারা গেছেন আরো ২২ জন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৬৭২ জন। সোমবার দুপুর আড়াইটায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইনে দৈনন্দিন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ছয়জন নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজন স্বাস্থ্যকর্মী, তিনজন গার্মেন্টসকর্মী ও একজন মাওলানা।
  • মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭

  • || ১০ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
করোনাকালে অর্থনীতিতে স্বস্তি দিচ্ছে প্রবাসীদের আয় জুন মাস পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিলের বিলম্ব ফি মওকুফের সিদ্ধান্ত বন্ধই থাকছে উবার-পাঠাওসহ সব রাইড শেয়ারিং ভারত সীমান্তের অংশ নিজেদের দাবি করে নেপালের পার্লামেন্টে বিল পেশ খেলাধুলার পাশাপাশি ফলাফলেও এগিয়ে বিকেএসপির ক্যাডেটরা
৪৩

করোনা থেকে বাঁচতে ২২ জরুরি পরামর্শ ডা. দেবী শেঠির

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২০  

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে আগামী ১ বছরের জন্য ২২ জরুরি পরামর্শ দিয়েছেন ডা. দেবী শেঠি। পরামর্শগুলো সহজ সরল। অবশ্য পালনে মিলবে জীবন।

১. এক বছরের জন্য বিদেশ ভ্রমণ স্থগিত।
২. আগামী এক বছর বাইরের খাবার খাবেন না।
৩. বিয়ে বা অন্যান্য অনুরূপ অনুষ্ঠানে যাবেন না।
৪. অপ্রয়োজনীয় ভ্রমণ করবেন না।
৫. কমপক্ষে এক বছর কোনো ভিড়ের জায়গায় যাবেন না।
৬. সামাজিক দূরত্বের নিয়মাবলী সম্পূর্ণরূপে অনুসরণ করুন।
৭. কাশি থেকে দূরে থাকুন।
৮. মুখোশটি মুখোমুখি রাখুন।
৯. বর্তমান এক সপ্তাহে খুব সাবধানতা অবলম্বন করুন।
১০. আপনার চারপাশে কোনো গোলমাল হতে দেবেন না।
১১. এখন থেকে ৬ মাস সিনেমা হল, শপিং মল, ভিড়ের বাজারে যাবেন না। সম্ভব হলে পার্ক, পার্টি ইত্যাদিও এড়ানো উচিত।
১২. প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ান।
১৩. নাপিতের দোকানে বা বিউটি সেলুন পার্লারে থাকাকালীন খুব যত্নশীল হন।
১৪. অপ্রয়োজনীয় সভাগুলি এড়িয়ে চলুন, সর্বদা সামাজিক দূরত্বের কথা মাথায় রাখুন।
১৫. করোনার হুমকি খুব শিগগিরই শেষ হচ্ছে না।
১৬. আপনি বাইরে বেরোনোর সময় বেল্ট, রিংগুলি, ঘড়ি পরবেন না। ঘড়ির দরকার নেই। আপনার মোবাইল সময় পেয়েছে।
১৭. কোনো হাতের রুমাল না, স্যানিটাইজার নিন।
১৮. আপনার ঘরে জুতো আনবেন না। বাইরে রেখে দিন।
১৯. আপনার হাত পরিষ্কার করুন।
২০. আপনি যখন মনে করেন আপনি সন্দেহজনক রোগীর কাছে এসেছেন তখন পুরো গোসল করুন।
২১. লকডাউন বা লকডাউন পরবর্তী ৬ মাস থেকে ১২ মাস এই সতর্কতা অনুসরণ করুন।
২২. আপনার পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে এটি ভাগাভাগি করুন।

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –
স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর