ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত আরো দুই হাজার ৩৮১ জনকে শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ৪৯ হাজার ৫৩৪ জনে দাঁড়িয়েছে। একই সময়ে মারা গেছেন আরো ২২ জন। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৬৭২ জন। সোমবার দুপুর আড়াইটায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ে অনলাইনে দৈনন্দিন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা। গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ছয়জন নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে দুইজন স্বাস্থ্যকর্মী, তিনজন গার্মেন্টসকর্মী ও একজন মাওলানা।
  • মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৮ ১৪২৭

  • || ১০ শাওয়াল ১৪৪১

সর্বশেষ:
করোনাকালে অর্থনীতিতে স্বস্তি দিচ্ছে প্রবাসীদের আয় জুন মাস পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিলের বিলম্ব ফি মওকুফের সিদ্ধান্ত বন্ধই থাকছে উবার-পাঠাওসহ সব রাইড শেয়ারিং ভারত সীমান্তের অংশ নিজেদের দাবি করে নেপালের পার্লামেন্টে বিল পেশ খেলাধুলার পাশাপাশি ফলাফলেও এগিয়ে বিকেএসপির ক্যাডেটরা
৩৮

এসএসসির ফল প্রকাশ হবে এ মাসের শেষেই!

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১২ মে ২০২০  

মাধ্যমিক ও সমমান পরীক্ষার (এসএসসি) খাতা আগেই দেখা হয়ে গিয়েছিল, বাকী ছিল কেবল ওএমআর শিট যাচাই। যে কারণে আটকে ছিল পরীক্ষাটির ফল। তবে ডাক বিভাগের সহায়তায় ওএমআর শিট বোর্ডে এসে পৌঁছানোতে চলতি মাসের শেষ দিকে ফল প্রকাশের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। 

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয়ক মু. জিয়াউল হক বলেছেন, চলতি মাসেই ফল প্রকাশ করা সম্ভব। আমাদের কাছে ওএমআর শিটগুলো এসে পৌঁছাচ্ছে। সেগুলো যাচাইও করা হচ্ছে। এ মাসের শেষ দিকে ফল প্রকাশ করা যেতে পারে।

এর আগে তিনি জানিয়েছিলেন, বিকল্প পদ্ধতি না পাওয়ার কারণেই যথা সময়ে মাধ্যমিক ও সমমানের (এসএসসি) পরীক্ষার ফল প্রকাশ করতে পারেনি। গণপরিবহন চালু না থাকাকেও ফল প্রকাশ করতে না পারার গুরুত্বপূর্ণ কারণ হিসেবে বর্ণনা করেছিলেন তিনি।

বোর্ড প্রধান জানান, গণপরিবহন বন্ধ থাকায় তখন পরীক্ষার্থীদের উত্তরপত্র বোর্ডে এসে জমা দিতে পারেননি পরীক্ষকরা। এখন ডাক বিভাগের সহায়তায় উত্তরপত্র বা শিক্ষার্থীদের প্রাপ্ত নম্বর ওএমআর শিট (অপটিক্যাল মার্ক রিডার) বোর্ডে পাঠানো হয়েছে। যা গত ১৮ মার্চ স্ক্যানিং কার্যক্রম স্থগিত করেছিল ঢাকা বোর্ড।

উল্লেখ্য, এ বছর ২৮ হাজার ৮৮৪টি প্রতিষ্ঠান থেকে ৯টি সাধারণ বোর্ডের অধীনে এসএসসিতে ১৬ লাখ ৩৫ হাজার ২৪০ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে। এরমধ্যে ৭ লাখ ৯১ হাজার ৯১৮ জন ছাত্র এবং ৮ লাখ ৪৩ হাজার ৩২২ জন ছাত্রী। এছাড়াও দাখিলে এবার ২ লাখ ৮১ হাজার ২৫৪ জন এবং এসএসসি ভোকেশনালে ১ লাখ ৩১ হাজার ২৮৫ জন পরীক্ষা দেয়।

পরীক্ষা ফেব্রুয়ারি মাসের ৩ তারিখে শুরু হয়ে মার্চের ৫ তারিখ শেষ হয়।

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –
শিক্ষা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর