ব্রেকিং:
বাংলাদেশে পৌঁছেছে ভারতের উপহারের ২০ লাখ ডোজ করোনা টিকা ‘কোভিশিল্ড’। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার কিছু আগে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে এয়ার ইন্ডিয়ার বিশেষ ফ্লাইটটি। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার এ টিকা বাংলাদেশকে উপহার হিসেবে দিলো ভারত সরকার।
  • বৃহস্পতিবার   ২১ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ৮ ১৪২৭

  • || ০৭ জমাদিউস সানি ১৪৪২

সর্বশেষ:
দেশে করোনার টিকাদান শুরু হবে ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মুজিববর্ষ উপলক্ষে ৯ লাখ পরিবারকে বাড়ি দিচ্ছে সরকার ঠাকুরগাঁওয়ে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে পলিথিনে ঢাকা বীজতলা ৪’শ কোটি টাকায় প্রতিবন্ধীদের জন্য ক্রীড়া কমপ্লেক্স করবে সরকার বিনাশুল্কে বাংলাদেশি ৮২৫৬ পণ্য যাচ্ছে চীনের বাজারে

ইন্দোনেশিয়ায় বিধ্বস্ত বিমানের ব্ল্যাক বক্সের সন্ধান মিলেছে

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১১ জানুয়ারি ২০২১  

সাগরে বিধ্বস্ত ইন্দোনেশিয়ার শ্রিয়িজায়া এয়ারলাইন্সের বিমানটির দুটি ব্ল্যাক বক্সের খোঁজ পাওয়া গেছে। রবিবার দেশটির জাতীয় পরিবহন নিরাপত্তা কমিটির প্রধান সোয়েরজান্তো জাহজোনো এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানান। 

তিনি বলেন, বিধ্বস্ত এসজে ১৮২ ফ্লাইটটির দুটি ব্ল্যাক বক্সের অবস্থান শনাক্ত করা হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার সামরিক বাহিনীর প্রধান হাদি জাহজান্তো বলেছেন, আমরা শীঘ্রই ব্ল্যাক বক্স গুলো পুনরুদ্ধার করতে পারব।

উদ্ধারকর্মীরা বিমানের ধ্বংসাবশেষের টুকরা জাকার্তা বন্দরে নিয়ে এসেছেন। কর্তৃপক্ষ জানায়, এগুলো জাকার্তা উপকূলের দ্বীপপুঞ্জের সাগরের ৭৫ ফুট গভীরে পাওয়া গেছে। উদ্ধার হওয়া একটি মোচড়ানো ধাতব টুকরায় শ্রিয়িজায়া এয়ারলাইন্সের নীল ও লাল রং ছিল। এছাড়া শরীরের বিভিন্ন অংশ ও কাপড়ও উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। মৃতদেহগুলো শনাক্তের জন্য পুলিশ পরিবারগুলোকে দাঁতের রেকর্ড ও ডিএনএ নমুনা দিতে অনুরোধ করেছে।

৬২ যাত্রী নিয়ে বিধ্বস্ত বিমানটির সব আরোহীর মৃত্যু হয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ইন্দোনেশিয়ার কর্তৃপক্ষ বলছে, তারা দুর্ঘটনার স্থান খুঁজে পেয়েছেন। তারা ধারণা করছেন, বোয়িং ৭৩৭ বিমানটি উড্ডয়নের চার মিনিটের মাথায় সাগরে বিধ্বস্ত হয়েছে। ফলে বিমানের কোনো যাত্রীর বেঁচে থাকার সম্ভাবনা নেই।

স্থানীয় সময় শনিবার দুপুরে রাজধানী জাকার্তা থেকে বিমানটি উড্ডয়ন করেছিল। পরবর্তীকালে সাগরের ওপরে ১০ হাজার ফুট উচ্চতায় থাকা অবস্থায় বিমানটি নিখোঁজ হয়ে যায়। তারপর থেকেই বিমানটির সঙ্গে কন্ট্রোল রুম থেকে আর যোগাযোগ করা যায়নি।

বিমানটিতে ১০ শিশুসহ ৫০ জন যাত্রী এবং ১২ জন ক্রু ছিল। বিমানে থাকা সব আরোহীই ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

– লালমনিরহাট বার্তা নিউজ ডেস্ক –